ফাইল আপলোড না করে শেয়ার ক্যাশ দিয়ে কীভাবে সহজে আয় করবেন? [সিক্রেট ট্রিকস]

50

এর আগে আমি একটা টিউটোরিয়াল লিখেছিলাম কীভাবে শেয়ার ক্যাশ দিয়ে সহজে ইনকাম করবেন প্রতিদিন ২৫ ডলার থেকে ২৫০ ডলার পর্যন্ত। অনেকেই বেশ আগ্রহ দেখিয়েছেন। অনেকেই ইনকাম করা শুরুও করেছেন। আপনাদের সফলতায় আমি মুগ্ধ। বেশ ভালো লাগছে আমার কাছে। যারা এখনো শেয়ার ক্যাশ সম্পর্কে জানেন না তারা উপরের ঐ পোস্টটি আগে পড়ে ফেলুন। আশা করি বুঝতে খুব একটা সমস্যা হবে না। আর সমস্যা হলেতো যেকোনো ধরণের সহযোগিতার জন্য আমি আছি। সহযোগিতা পাবেন ইনশাল্লাহ।

শেয়ার ক্যাশে যারা ব্যর্থ হচ্ছেন তাদের জন্য এই লেখা; অবশ্য সবাই-ই পড়তে পারেন…

আবার বেশ কয়েক জন আমাকে পার্সোনালি নক করে জানিয়েছেন তারা একেবারেই পারছেন না। ব্যাপারটা ক্লিয়ার বুঝতে পারছেন না এবং ফাইল আপলোড করা বেশ ঝামেলা। বাংলাদেশের নেট স্পীড পরিপ্রেক্ষিতে অনেক ঝামেলা হয় ফাইল আপলোড করতে গেলে।

আপনারা যারা শুরু করতে পারছেন না, তাদের জন্যই আজকের এই টিউটোরিয়াল। আমি আজকে শেয়ার ক্যাশ-এর দু’টো সিক্রেট ট্রিকস জানাবো আপনাদের। আশা করি এগুলো কাজে লাগিয়ে খুব সহজেই ইনকাম করতে পারবেন এখন। কারণ এরচেয়ে আর কোনো সহজ ওয়ে আছে বলে আমার জানা নেই।

শেয়ার ক্যাশের সিক্রেট দু’টি ট্রিকস হচ্ছে-

১. কোনো ফাইল আপলোড না করে কীভাবে ইনকাম করবেন? এবং
২. ফেসবুক কাজে লাগিয়ে কীভাবে ইনকাম করবেন?

তো চলুন জেনে নেয়া যাক এই দু’টো হিডেন ট্রিকস। প্রথমেই ফাইল আপলোড না করে কীভাবে ইনকাম করবেন সে সম্পর্কে বলি:

ফাইল আপলোড ছাড়া পদ্ধতি

এই পদ্ধতিটা শেয়ার ক্যাশে নতুন। তাই অনেকেই জানেন না এখনো। সেটা হচ্ছে- শেয়ার ক্যাশ এক্সক্লুসিভ কনটেন্ট (Exclusive Content). শেয়ার ক্যাশে লগিন করার পর ড্যাশবোর্ডে বাম পাশের মেনুতে এই অপশনটি পাবেন। এখানে ক্লিক করলে দেখতে পাবেন সফটওয়ার, ইবুকস এবং গেম গাইডস। এগুলো হচ্ছে শেয়ার ক্যাশের প্রি-আপলোডেড ফাইল। সফটওয়্যার, গেম এবং ইবুকস মিলে প্রায় বিশ হাজার ফাইল আছে এখানে। যেগুলো আমাদের নিত্যদিনের ব্যবহার্য সফটওয়ার এবং প্রয়োজনীয় বই। যে কারও এগুলো কাজে লাগে। তাই এগুলোর কনভার্টস খুব ভালো।

এই ফাইলগুলো আপনি আপনার একাউন্টে এড করে নিতে পারেন মাত্র একটা ক্লিক করে। এক্সক্লুসিভ কন্টেন্ট-এ ক্লিক করলে ফাইলগুলো দেখতে পাবেন। প্রথমে সফটওয়ার বা ইবুকস-এর নাম তারপর ফাইলের সাইজ এবং পরের অপশনটি হচ্ছে একশন। এখান থেকে ফাইল সিলেক্ট করার পর একেবারে ডান পাশের প্লাস (+) চিহ্নের উপর ক্লিক করলে নিমিষেই আপনার ফাইল ম্যানেজারে যুক্ত হবে ফাইলটি। তখন ঐ ফাইলটি হবে আপনার। এবং ঐ লিংক থেকে কেউ ডাউনলোড করলে আপনার লিড জেনারেট হবে এবং আপনি পেমেন্ট পাবেন।
ShareCash-Bangla-Tutorial-hidden-tricks

তো বন্ধুরা, সুতরাং আশা করা যায় ফাইল আপলোডের ঝামেলা আপনাদের নিরসন হয়েছে। এখন ধুম মার্কেটিং শুরু করুন। প্রতিদিন ২০/৩০ ডলার ইনকাম করা আসলে খুব কঠিন কিছু না। বেস্ট অব লাক!

শেয়ার ক্যাশ + ফেসবুক = সহজ এবং বিগ ইনকাম !

আমাদের চোখের সামনেই অনেক ট্রিকস রয়েছে সহজ ইনকাম করার কিন্তু কারও নজরেই তেমন পড়ে না। চাইলেই সেসব ট্রিকসগুলো কাজে লাগিয়ে আপনার জীবনধারা পাল্টে ফেলতে পারেন সহজে। কীভাবে? চলুন জানা যাক-
আমি কয়েক দিন আগে একটা পোস্ট লিখেছিলাম: ফেসবুকের মাধ্যমে কীভাবে ইনকাম করবেন? লেখাটি পড়ে অনেকেই উদ্বুদ্ধ হয়েছেন। আবার বেশ কয়েকজন জানতে চেয়েছেন এটা কি আদৌ সত্যি কিনা? সত্যি কিনা সেটা কয়েকজন ইতোমধ্যে প্রমাণও করে ফেলেছেন। কারন তারা কাজ পাওয়া শুরু করেছেন।

একজন জানতে চেয়েছেন- তার একটা ফেসবুক ফ্যানপেজ আছে যেখানে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার লাইক/ফ্যান আছে। তিনি এটা কীভাবে কাজে লাগবেন? চলুন উনার প্রশ্নের উত্তরটা দিতে দিতে আপনাদেরকেও ট্রিকসটা শিখিয়ে দিই।

স্টেপগুলো দেখুন:

  1. আপনি এক্সক্লুসিভ কনটেন্ট থেকে ৩০টা ফাইল আপনার ফাইল ম্যানেজারে এড করলেন। অর্থাৎ আপনার আছে ৩০টা ফাইলের লিংক।
  2. আর আগে থেকেই আপনার আছে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার ফ্যানের একটা ফেসবুক ফ্যান পেজ। কম-বেশি হতে পারে। হিসেবের সুবিধা এবং প্রশ্নের উত্তরের জন্য এই সংখ্যাটাই ধরা হলো।
  3. আপনি কাজ শুরু করলেন এভাবে: প্রতিদিন একটা লিংক এবং ঐ লিংকে কী ধরণের সফটওয়ার আছে এবং সফটওয়ারের বর্ণনা, কাজ, ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা ইত্যাদি ১০০-২০০ ওয়ার্ডে লিখে আপনার ঐ ফ্যান পেজে পোস্ট করুন।
  4. যদি ঐ গ্রুপের মাত্র এক ভাগ লোকও ঐ লিংকে ক্লিক করে এবং যদি ঐ এক ভাগের চার ভাগের এক ভাগও সফটওয়ারটি ডাউনলোড করে তাহলে ফলাফল কী দাড়ায় সেটা হিসেব করি চলুন-
  5. ঐ ফ্যানপেজে ফ্যান আছে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার। এর এক ভাগ হচ্ছে চৌদ্দশ। চৌদ্দশতের চার ভাগের এক ভাগ হচ্ছে তিনশ পঞ্চাশ। অর্থাৎ আপনার সফটওয়ারটি একদিনে সর্বনিম্ন ডাউনলোড হলো তিনশ পঞ্চাশ বার। তাহলে ফলাফল কী হলো?
  6. আমরা জানি শেয়ার ক্যাশ প্রতি ডাউনলোডের জন্য এক ডলার থেকে বিশ ডলার দেয়। আমরা যদি সর্বনিম্নটাই হিসেব করি অর্থাৎ প্রতি ডাউনলোডের জন্য আমরা যদি এক ডলার হিসেব করি তাহলে দেখুন আপনি ঐ ফ্যান পেজ থেকে প্রতিদিন তিনশ পঞ্চাশ ডলার ইনকাম করতে পারছেন মিনিমাম।

বন্ধুরা, ভেবে বলুন: উপরের হিসেবটি কি আপনার কাছে অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে? নাকি বাস্তব লাগছে? অবশ্যই বাস্তব, তাই না? আর শুনে অবাক হবেন, এভাবেই অনেকে প্রতিদিন হাজার ডলারের বেশি ইনকাম করছে।

তো আজ এ পর্যন্তই থাক। যেকোনোরকম সমস্যার জন্য নিচে প্রশ্ন করুন। আমি উত্তর দেবো।

একটি অনুরোধ: অনুগ্রহ করে ফেসবুকে ব্যক্তিগতভাবে প্রশ্ন করবেন না। তার চেয়ে নিচে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন। এতে দু’টো লাভ। প্রথমত আপনার সমস্যাটা আরও অনেকের থাকতে পারে। ফলে আপনার প্রশ্নের উত্তরটা যখন আমি দেবো তখন আপনার যেমন জানা হবে তেমনি আরও অনেকে জেনে তারও উপকার হবে। দ্বিতীয়ত: প্রতিদিন এই ব্লগে অসংখ্য পাঠক আসেন। এখন সবার প্রশ্নের উত্তর যদি আমি আলাদা দিতে যাই, এটা আমার জন্য কষ্ট হয়ে যায়। আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ্য থাকুন। নতুন নতুন অনলাইন আয়ের আইডিয়া এবং টিপস এন্ড ট্রিকস নিয়ে আবারও হাজির হবো আপনাদের সামনে। ধন্যবাদ।

-------------------

লেখাটি সম্পর্কে আপনার সুচিন্তিত মতামত আমাকে আরও লিখতে উৎসাহী করবে। সুতরাং গঠনমূলক মন্তব্য করুন...