শেয়ার ক্যাশ হিডেন ট্রিকস: কেন আপনি শেয়ার ক্যাশে ফেল করছেন এবং শেয়ার ক্যাশ সাকসেসের পরীক্ষিত উপায় কী?

68

প্রাথমিক কথা

এই লেখাটি শুধু তাদের জন্য- যারা শেয়ার ক্যাশ-এ সাইন আপ করেছেন (যারা সাইন আপ করেননি এখনো তারা আমার এই লেখাটা আগে পড়ে আসুন: পে পার ডাউনলোড মাধ্যমে প্রতিদিন আয় করুন ২৫ থেকে ২৫০ ডলার… আমি আয় করছি আপনিও পারবেন) কিন্তু কাজ করতে পারছেন না কিংবা ফাইল ডাউনলোড করতে প্রবলেম হচ্ছে বা অন্য কোনো সমস্যা। আপনাদের এই সম্যাগুলো দূর করার জন্যই আজকের এই লেখা। আশা করি এই লেখাটি পড়ার পর শেয়ার ক্যাশ সংক্রান্ত আপনাদের সব সমস্যা দূর হবে। তো চলুন জানা যাক শেয়ার ক্যাশ হিডেন ট্রিকসগুলো। যা কাজে লাগিয়ে আমরা খুব সহজেই অন্তত প্রতিদিন যেন ১০ ডলার ইনকাম করতে পারি শুরুতে সেটা শিখি।

একটি কথা: আমার জানামতে শেয়ার ক্যাশ নিয়ে বাংলাতে টিউটোরিয়াল আমি-ই প্রথম লিখেছি। এর আগে এতো সহজ করে কেউ লিখেছে, আমি পাইনি। আপনারা যারা অনলাইনে অনেক পরিশ্রম করছেন কিন্তু আশানুরূপ ইনকাম করতে পারছেন না, শুধুমাত্র আপনাদের কথা বিবেচনা করে আপনাদের জন্য অনেক সময় নিয়ে টিউটোরিয়াল লিখি কোনোরকম বেনিফিট আশা না করে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, অনেকেই আমার এই টিউটোরিয়ালগুলো নিজের নাম করে অন্যান্য নামকরা ব্লগে পাবলিশ করছে আমার কোনোরকম ক্রেডিট ছাড়াই। এ কেমন বিচার আপনাদের? যদি ভবিষ্যতে এরা এসব বন্ধ না করে তাহলে হয়তো আমার এই লেখালেখিও বন্ধ হয়ে যাবে। বাদ যাক উপকার। টিউটোরিয়াল না লিখে এই সময়টা অন্য কাজে ব্যয় করলে যথেষ্ট ইনকাম হবে আমার। আমি সত্যিই মর্মামত এসব অসাধু লোকগুলোর আচরণে।।

কেন আপনারা শেয়ার ক্যাশ-এ সফল নন?

হ্যাঁ, প্রথমে এটা আলোচনা করা যাক যে, কেন আপনারা শেয়ার ক্যাশ-এ সফল হতে পারছেন না। আপনাদের ভুলগুলো যদি ধরতে পারেন তাহলে সেগুলো সংশোধন করতে সুবিধা হবে। আপনাদের বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলে আমার কাছে যে ব্যাপারগুলো প্রতীয়মান হয়েছে সেগুলো হচ্ছে-

  1. নিজেই নিজের ফাইল ডাউনলোড করার চেষ্টা করছেন, ফলে নিজের একাউন্ট ব্লাক লিস্টেড হচ্ছে।
  2. বাংলাদেশের বন্ধুদের কাছে লিংক দিচ্ছেন ডাউনলোড করার জন্য। ভাবটা এমন: ওরা ডাউনলোড করবে আর আপনি ডলার গুনতে থাকবেন।
  3. বিভিন্ন জনকে লিংক সরবরাহ করছেন এবং কেন ওরা ডাউনলোড করছে না তাই হতাশ হচ্ছেন, রেগে যাচ্ছেন।
  4. ১/২ দিন কাজ করার পরই হতাশ হয়ে যাচ্ছেন। ভাবছেন শেয়ার ক্যাশ একটা ফালতু পদ্ধতি। এটা কাজ করে না।
  5. কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই কাজ করছেন। ঠিক কত টাকা কীভাবে ইনকাম করবেন কিছুই জানেন না।
  6. কোথায় মার্কেটিং করতে হবে সেই সম্পর্কে না জেনে, না বুঝে এবং কোনোরকম চিন্তা-ভাবনা না করেই যত্রতত্র লিংক ছড়িয়ে দিচ্ছেন আর ভাবছেন কেন ডাউনলোড হচ্ছে না?
  7. এবং এরকম আরও কিছু কারণে আপনারা মোটামুটি এখন মিসগাইডেড।

তো আজকের এই লেখা মূলত উপরের এই সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্যই। আশা করি এগুলো যদি সলিউশন করতে পারেন তাহলেই আপনি শেয়ার ক্যাশের মাধ্যমে মোটামুটি ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

শেয়ার ক্যাশ-এ কীভাবে সফল হবো?

আপনি শুনলে অবাক হবেন, শেয়ার ক্যাশে সফলতা পাওয়া সত্যিই সহজ কাজ। এতোটা সহজ যা আপনি ভাবতেও পারবেন না। এবং সগুলোই লিগ্যাল ওয়েতে। কোনোরকম স্প্যামিং করতে হবে না, কিছু না। তবু স্মার্ট এমাউন্ট ইনকাম করতে পারবেন।

কীভাবে?

এভাবে- নিজের উপর আস্থা রেখে একাগ্রতার সাথে কাজ করে গিয়ে। একটা কথা মনে রাখবেন: অনলাইন ইনকাম কোনো শর্টকার্ট ওয়ে নয়। এখানে পরিশ্রম করে টাকা ইনকাম করতে হয়। তবে নিজের মেধা-বুদ্ধি-টেকনিক দ্বারা পরিশ্রম কমিয়ে আনা যায় খুব সহজে। সেই কাজটাই কীভাবে করতে হয় সেটা যদি জানতে পারেন তাহলে আপনার সফলতা কেউ ঠেকাতে পারবে না, ইনশাল্লাহ।

অসাধু পথে নয়, সাধু পথে আসুন…

অনলাইনে কাজ করার জন্য কখনো অসাধু পথে যাবেন না। তাহলে বেশি দূর আগাতে পারবেন না। মুখ থুবড়ে পড়ে যাবেন, ভাই। প্লিজ, এই কাজটা ভুলেও করবেন না। যারা স্প্যামিং করেন তারা কখনোই ভালো কিছু করতে পারবেন না।

সুতরাং অসাধু পথে নয়, সঠিক পথ আছে অনেক। সেগুলোর যেকোনো একটা অবলম্বন করেই আপনি মাসে পাঁচশ’ থেকে এক হাজার ডলার ইজিলি ইনকাম করতে পারেন। তাহলে কেন যাবেন অসাধু পথে?

শেয়ার ক্যাশ সাকসেসের পরীক্ষিত উপায়: শেয়ার ক্যাশ এবং ফেসবুক গ্রুপ পদ্ধতি

আপনি কোন্ ধরণের ফাইল মার্কেটিং করবেন সেটা ঠিক করুন সবার আগে। ধরুন আপনি ইবুক মার্কেটিং করবেন। এবং ইবুকগুলো হচ্ছে কীভাবে অনলাইনে আয় করবেন তার উপর। ওকে, দ্যাটস ফাইন। ২০টা সুন্দর সুন্দর এবং দরকারী অনলাইন আয়ের ইবুক অনলাইন থেকে খুঁজে ডাউনলোড করে নিজের কম্পিউটারের একটা ফোল্ডারে রাখুন। তারপর সেগুলো আপলোড করুন শেয়ার ক্যাশ-এ। শেয়ার ক্যাশ থেকে এই ২০টা ইবুকের ডাউনলোড লিংক এক এক করে নিয়ে একটা নোটপ্যাড-এ রাখুন। প্রতিটিা লিংকের পাশে বইয়ের নাম লিখে রাখুন।

শেয়ারক্যাশ লগ আউট করুন। ওটাতে আর দরকার নেই আপাতত। এবার ফেসবুক ওপেন করুন। লগিন করুন। ৫০ টা মেক মানি অলাইন (Make Money Online) গ্রুপ খুঁজে বের করে ওগুলোতে জয়েন ক্লিক করুন। এপ্রুভ হতে সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টা সময় লাগবে। প্রতিটা গ্রুপের লিংক আর একটা নোটপ্যাডে সংরক্ষণ করুন।

যে গ্রুপগুলোতে জয়েন করবেন সেগুলো অবশ্যই Australia, Canada, France, New Zealand, United Kingdom বা United States-এর হতে হবে। এবং সেগুলোতে যেন মিনিমাম ১৫০০-২০০০ জন মেম্বার থাকে। ৫০টা গ্রুপে জয়েনিং করার পর অপেক্ষা করুন। এডমিন এপ্রুভ করলে আপনি নোটিফিকেশন পাবেন। নোটিফিকেশন পাওয়ার পর ঐগ্রুপে যান। গ্রুপের লেখাগুলো ভালো করে পড়ুন ২/৪ ঘণ্টা সময় ব্যয় করে। দেখুন গ্রুপের মেম্বার মূলত কী চাচ্ছে? তাদের বিভিন্ন প্রশ্নের গঠনমূলক উত্তর দেয়ার চেষ্টা করুন।

এভাবে ৫০টা গ্রুপে ৩/৪ দিন একটিভিটি চালান। তারপর শুরু করুন নিজের প্রয়োজনীয়তা মার্কেটিং করার। তবে ফ্ল্যাডিং করবেন না। মার্কেটিং-এর কাজটা দু’ভাবে করতে পারেন- ১. গ্রুপ পোস্ট বা ডক বানিয়ে এবং ২. গ্রুপের বিভিন্ন পোস্টে কমেন্ট করে।

১. গ্রুপ পোস্ট বা ডকস পদ্ধতি: এজন্য আপনার কাছে থাকা ২০টি ইবুক থেকে যেকোনো একটা বাছাই করুন। ঐ ইবুকটা এক নজর দেখুন। তারপর ওটার উপর ১০০-১৫০ ওয়ার্ডসের ছোট্ট একটা রিভিউ লিখুন। রিভিউতে লিখুন বইটাতে কী আছে? কেন সবার বইটা পড়া জরুরি, কী ধরণের বেনিফিট পাবে বই থেকে ইত্যাদি ইত্যাদি লেখার পর নিচে বইটার ডাউনলোড লিংক সংযোজন করুন।

দেখবেন গ্রুপে পোস্ট করার ১/২ ঘণ্টার মধ্যেই এডমিন পোস্টটা এ্রপ্রুভড করে দিয়েছে। এরকম একটি পোস্ট থেকে কী পরিমাণ ডাউনলোড পেতে পারেন জানেন? আপনার ধারণার চেয়েও বেশি। এভাবে প্রতিদিন অনন্ত ১০টা গ্রুপে ১০টা পোস্ট করুন। আর দিন শেষে লগিন করে দেখুন আপনার শেয়ার ক্যাশের আপডেট। অবাক না হয়ে পারবেন না!

২. গ্রুপের পোস্টে কমেন্ট পদ্ধতি: এই পদ্ধতিতে গ্রুপগুলোর বিভিন্ন পোস্টগুলো মনোযোগ দিয়ে পড়বেন। দেখবেন প্রতিটা পোস্টের নিচেই অনেক কমেন্ট আছে। সেই কমেন্টগুলোতে অনেকের অনেক জিজ্ঞাসা আছে। অনেকে আরও জানতে চেয়ে কমেন্ট করেছে। এরকম কমেন্টগুলো দেখে আপনি সেগুলোর রিপ্লাই করবেন এভাবে: তুমি এই ব্যাপারে আরও বিস্তারিত জানতে পার এই বইটা থেকে। তারপর আপনার বইয়ের ডাউনলোড লিংক দেবেন।

এভাবে প্রতিদিন ১০০-১৫০ কমেন্ট করুন সেই ৫০ টা গ্রুপে। আর দেখুন ম্যাজিক!

শেয়ার ক্যাশ-ই প্রকৃত পিপিডি সাইট!

আমাকে অনেকেই শেয়ার ক্যাশ-এর অল্টারনেট সাইটের কথা লিখতে বলে। অনেক আছে। ইচ্ছে করলেই লিখতে পারি। কিন্তু বিশ্বাস করুন; আমার নিজের অভিজ্ঞতা বলে জানি, এরচেয়ে ট্রাস্টেড সাইট আর নেই এই ক্ষেত্রে। সুতরাং ধৈর্য ধরে সঠিক প্ল্যান দাড়া করিয়ে এখানেই লেগে থাকুন। ইনশাল্লাহ সফলতা আসবেই। অন্যান্য পিপিডি সাইটে যেখানে একটা ডাউনলোডের জন্য দিয়ে থাকে মাত্র ২৫ সেন্ট সেখানে শেয়ার ক্যাশ ৮/৯ ডলার পর্যন্ত দিয়ে থাকে। একবার আমি ফ্রান্স থেকে একটা ফাইল ডাউনলোডের জন্য পেয়েছিলাম ১১.৬১ ডলার। তাছাড়া উপরে যেসব কান্ট্রিগুলোর নাম দিয়েছি সেগুলো থেকে ডাউনলোড হলেও আপনি গড়পরতা ৩/৪ ডলার করে পাবেন প্রতি ডাউনলোডের জন্য।

সুতরাং ধৈর্য ধরে শেয়ার ক্যাশ-এ কাজ করুন। সফলতা আসবেই ইনশাল্লাহ।

অনুরোধ! একটি অনুরোধ…

অনুগ্রহ করে ফেসবুকে আমাকে কেউ পার্সোনালি প্রশ্ন করবেন না। যেকোনো সমস্যার জন্য নিচে কমেন্ট করুন। ইনশাল্লাহ আপনার প্রতিটা সমস্যার সমাধান দেয়ার চেষ্টা করবো। ফেসবুকে উত্তর না দিয়ে এখানে দিলে দুটো বেনিফিট- ১. আপনি আপনার সমাধান পেলেন এবং ২. অন্য আরও কেউও যদি সেইম সমস্যায় পড়ে তাহলে তিনিও উপকৃত হলেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

তো বন্ধুরা, আজ এ পর্যন্তই। সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ্য থাকুন। অল দ্য বেস্ট!

-------------------

লেখাটি সম্পর্কে আপনার সুচিন্তিত মতামত আমাকে আরও লিখতে উৎসাহী করবে। সুতরাং গঠনমূলক মন্তব্য করুন...